নাইম আইটি https://www.nayemit.com/2022/06/online-income.html

মোবাইল দিয়ে অনলাইনে আয় করার উপায় ২০২২

আশেপাশে সব স্থানেই শুনছেন অনলাইনে আয় করা যায় কিন্তু আপনার কাছে তো কম্পিটার বা ল্যাপটপ নেই, আপনি অনলাইন থেকে আয় করতে পারবেনই না। 
Online Income From Mobile
এই ধারনা নিয়ে বসে আছে এমন মানুষের সংখ্যা নিছকই কম নয়। যেখানে শতকরা ৫% মোবাইল ফোন বা স্মার্টফোন ব্যবহারকারীরা জানে যে মোবাইলের মাধ্যমেও আয় করা সম্ভব। 

ঘরে বসে মোবাইলে আয়

ঘরে বসে মোবাইলে আয়! কি অদ্ভুত শোনাচ্ছে তাইনা? টাকা কামানো কি এতোই সোজা যে ঘরে বসে থাকবো আর মোবাইলের মাধ্যমে আয় করে ফেলবো। হাহা, শুনতে কিছুটা অবাক লাগলেও ২০২২ এ এসে এই কাজটি করা সম্ভব হয়ে গেছে। আপনি চাইলেই এখন নিজের ঘরে বসে মোবাইলে আয় করতে পারবেন এবং এটার জন্য নিদ্দিষ্ট একটি প্লাটফর্ম নয় বরং আপনার ভালো লাগার দিক থেকে বিবেচনা করে অনেক গুলো প্লাটফর্মে উক্ত কাজ গুলো করতে পারবেন। 

কিছু কাজ এমন যে কিছুটা স্কিলের ঝলক দেখাতে হবে আবার কিছু কাছ আছে এমন যেখানে কেবল ঠিক ভাবে কিছু সময় বিনিয়োগ করার মাধ্যমেই ঘরে বসে মোবাইলে আয় করে ফেলতে পারবেন। যদিও সেই সব কাজে আহামরি একটা অর্থ আসবে না তবুও একেবারেই কিছু না পাওয়ার থেকে কিছু একটা পাওয়া ভালো না? তবে চলুন শুরু করে দেই সেই দিকনির্দেশনা যা অনুসরণ করার মাধ্যমে মোবাইলের মাধ্যমে আয় করা যাবে। 

মোবাইল দিয়ে আয় করার পূর্ব প্রস্তুতি 

ওয়েট, মোবাইলের মাধ্যমে আয় করতে যাওয়ার আগে কিছু বিষয়ের প্রস্তুতি গ্রহন ও কিছু বিষয়ে জানার প্রয়োজন আছে। সেগুলো জেনে রাখেনঃ

আপনার কাছে অবশ্যই একটি স্মার্টফোন থাকতে হবে এবং অবশ্যই সেটা এড্রয়েড ৯ ভার্সনের সমতুল্য বা অধিক। কারন আজকাল প্রায় সব ধরনের অ্যাপ ও ওয়েবসাইটের ফিচার্স গুলো এমন ভাবে সাজানো যা আগের ভার্সনের এন্ড্রয়েড ফোন গুলোতে ঠিক ভাবে অপারেট করতে পারবে না। 

ভালো ইন্টারনেট কানেকশন থাকা মেন্ডেটরি এই কাজ গুলো করার ক্ষেত্রে। যেহেতু আপনি কাজ করছেনই অনলাইনে ঘরে বসে থেকে তাই কাজের মাঝে যদি ইন্টারনেটের সল্পতা দেখা দেয় সেটা অবশ্যই নেতিবাচক দিক হবে অনলাইনে আয় করার ক্ষেত্রে। 

আপনি যখন অনলাইনে আয় করবেন তখন সেই আয়ের পরিমাণ রিসিভ ও করবেন কিন্তু অনলাইনে এক্ষেত্রে আপনার দেশিও মোবাইল ব্যাংকিং, ব্যাংক একাউন্ট এবং দেশের বাইরের প্লাটফর্মে কাজ করলে পেপাল, পেওনিয়র একাউন্ট থাকা লাগবে যাতে করে প্রয়োজন অনুসারে পেমেন্ট গ্রহন করতে পারেন। 

যখনই কাজ করতে বসবেন সেটা যেনো আপনার ফ্রি সময় হয় কারন একধিক কাজ একসাথে করা সম্ভব হয়ে উঠবে না যদি আপনি অনলাইনে কাজ করতে থাকেন। 

মোবাইল দিয়ে অনলাইনে আয় করার উপায় 

জেনে নিলেন কি কি প্রয়োজন এবং কিভাবে প্রস্তুতি নেয়ার দরকার। উক্ত প্রসেস যদি ইতিমধ্যে সম্পন্ন করা হয়ে থাকে তবে নিম্মে উল্লেখিত উপায় গুলো দেখে নিন যা অনুসরণ করলে ঘরে বসে মোবাইলে আয় করা সম্ভব হবে। 

ব্লগিং করে আয় 

টুকটাক অনলাইন সম্পর্কে ধারনা থাকলে ইতিমধ্যে বুজে গেছেন কোন উপায়ের কথা বলছি তবে ধরে নিচ্ছি আপনি একেবারেই নতুন এই সেক্টরে সেক্ষেত্রে ব্লগিং হলো এমন একটি কাজ যেখানে ওয়েবসাইট তৈরি করে নিজের ভালো লাগার বিষয় গুলোর উপর লেখালেখি করা এবং তার মাধ্যমে আয় করা। এবার প্রশ্ন হচ্ছে উক্ত কাজ গুলো করবেন কোথা থেকে? এবং কিভাবে শুরু করবেন? 

দেখুন এটি একটি বৃহৎ প্রসেস যা এই আর্টিকেলের বিষয়বস্তুর সাথে জরিত না। তবে ব্যাসিক কিছু কথা বলাই যায় - ব্লগিং করার ক্ষেত্রে অবশ্যই আপনার ডোমেইন, হোস্টিং থাকতে হবে। গুগলের ব্লগার প্লাটফর্মে একাউন্ট করলে হোস্টিং এর প্রয়োজন হবে না। একটি ওয়েবসাইট বা ব্লগ তৈরি করে সেখানে আপনার কন্টেন্ট পাবলিস্ট করতে হবে। নিদ্দিষ্ট criteria সম্পন্ন করলে গুগল এডসেন্স এর মাধ্যমে আয় করা সম্ভব হয়ে উঠবে। 

বিঃ দ্রঃ এখানে উল্লেখিত “ ডোমেইন, হোস্টিং, ব্লগার, ওয়েবসাইট, গুগল এডসেন্স “ শব্দ গুলোর সাথে পূর্ব পরিচিত না হয়ে থাকলে গুগল অথবা ইউটিউবে সার্চের মাধ্যমে জেনে নিন। অনেক অনেক আর্টিকেল এবং ভিডিও আছে এই বিষয়ক। 

গেম খেলে আয় 

এই কাজটি করার জন্য কেউ যদি আপনাকে জিজ্ঞাস করে “ choti bachi ho kya “ তবে তার জিজ্ঞাসা নিকটবর্তী ডাস্টবিনে রেখে দিতে পারেন। কারন যেকাজের মাধ্যমে আপনার অর্থ আসছে সেকাজ করাতে বাচ্চা বড় হওয়ার প্রয়োজন নেই। সকল বয়সের মানুষের অধিকার রয়েছে নিজেকে আর্থিক সচ্ছলতা দান করার। 

কিছু জনপ্রিয় মোবাইল অ্যাপ SkillClass, Winzo, Bigcash এবং Gamezy এর মাধ্যমে বেশ কিছু গেম (ক্রিকেট, কার রেসিং, বাবল শুটার, লুডো, ক্যারাম ইত্যাদি সহ আরো অনেক) খেলে আয় করতে পারেন। এবং দেশে প্রচলিত মোবাইল ব্যাংকিং সেরা গুলোর মাধ্যমে সহজেই আয় করা অর্থ উত্তোলন করতে পারবেন। 

সার্ভে করে আয় 

বিভিন্ন কোম্পানি বিভিন্ন প্রয়োজনে যেকোনো বিষয়ে মানুষের মতামত জানতে অনেক প্লাটফর্মে সার্ভের কাজ দিয়ে থাকে। উক্ত পরিসংখ্যানে অংশগ্রহন করে সৌজন্যতা হিসেবে কিছু অর্থ উপার্জন করার মত সুযোগ হয়েই যায়। বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই বাংলাদেশে এরুপ সার্ভের কাজর দেখা মিলে না যার কারন আপনাকে অবশ্যই অন্যান্য দেশের সার্ভেতে অংশগ্রহন করতে হবে। 

জনপ্রিয় কিছু সার্ভে প্লাটফর্ম হছে : Google Opinion Reward, Google Task Mate, এবং ySense

মাইক্রোওয়ার্ক সাইট থেকে আয় 

মাইক্রো অর্থ ছোট এবং ওয়ার্ক হচ্ছে কাজ। মোট কথা, ছোট ছোট কাজ গুলো করার মাধ্যমে যদি আয় করার সুযোগ সৃষ্টি হয় সেটাকে মাইক্রোওয়ার্ক বলা হবে। এখানে যে কাজ গুলো করতে হয় তা খুবই ছোট এবং অল্প সময়ের মধ্যে সম্পন্ন করা এমন। 

মাইক্রোওয়ার্কের জন্য জনপ্রিয় অ্যাপ হচ্ছে : মাইক্রোওয়ার্কার্স, পিকোওয়ার্কার্স 

ছবি ও ভিডিও বিক্রি করে আয় 

ছবি তুলতে ভাল্লাগে? বা সুন্দর কিছু ভিডিওগ্রাফি? খুব সাধারণ কোনো দৃশ্যকে অসাধারণ ভাবে উপস্থাপন করার মত সক্ষমতা আছে? তাহলে বেশ লাগিয়ে দিন সেই ট্যালেন্টকে অর্থ আয়ের জন্য। নেমে পড়ুন মোবাইলটি হাতে নিয়ে যেটার ক্যামেরা থেকে তোলা যায় সেই সব ছবি যা মানুষের মন জয় করতে সক্ষম। যার জন্য মানুষ অর্থ প্রদান করতেও রাজি। 

কি, বিশ্বাস হচ্ছে না যে এমন প্লাটফর্ম আছে যেখানে আপনার তোলা ছবি বা ভিডিও আপলোড করলে মানুষ আপনার ছবি বা ভিডিও অর্থ দিয়ে কিনবে? তাহলে ঘুরে আসুন নিচে দেয়া সাইট গুলো থেকে। 
  • শাটারস্টক
  • ফোপ
  • আইএম
  • স্ন্যাপওয়্যার
  • ড্রিমসটাইম

ক্যাপচা কমপ্লিট করে আয় 

মাঝে মাঝে এমন কি হয়েছে যে, গুগলের কাছে নিজেকে “ রোবট নই “ প্রমান করেছেন? এবং সেটি করেছেন যার মাধ্যমে সেই কাজটিইকেই ক্যাপচা বলে। কাজটি সহজ না? তবে কিছু লোকের কাছে কাজটি বিরক্তের কারন অবশ্য, এক্ষেত্রে সেসকল লোকেরা এই কাজ থেকে দূরে থাকাই ভালো। 

যাদের উদ্দেশ্য আয় করা এবং কোনো কাজকেই কম মর্যাদা দেয় না তারা অনায়াসেই এই প্লাটফর্ম গুলো ( QlinkGroup, Fast Typers, Virtual Bee, ProTypers, 2captcha, captcha2cash ) থেকে ক্যাপচা পূরন করার মাধ্যমে আয় করতে পারেন। কিভাবে কি করতে হবে তার প্রতিটা ডিটেইলস ওয়েবসাইট গুলোতে দেয়া আছে, সময় করে সেগুলো আগে ভালো ভাবে পড়ে নিবেন। প্রতিদিন ২ - ৩ ঘন্টা সময় দিলে এই সাইট গুলো থেকে মাসে ৬-৮ হাজার টাকা অনায়াসেই এসে যাবে। 

পরিশেষে, এখানে ঘরে বসে মোবাইলে আয় করার উপায় গুলো সম্পর্কে বলেছি। পাশাপাশি কার জন্য কোন ধরনের কাজ শ্রেয় সেই সম্পর্কেও জানিয়েছি। এখানে আমার ভূমিকা ছিলো কাজের খোজ দেয়া বাকিটা এবার আপনার বিষয়, নিজের পছন্দ অনুযায়ী সঠিক কাজটি বেছে নিন এবং মোবাইলের মাধ্যমেই অনলাইনে আয় করার পথে অগ্রসর করুন। 

শেয়ার করলে মিষ্টি পাবেন

0 জন কমেন্ট করেছেন

Please read our Comment Policy before commenting. ??

পটেনশিয়াল আইটি কী?